২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

ফেসবুকের কয়েকটি প্রজন্ম…

Weekly Abhijug
প্রকাশিত আগস্ট ৯, ২০২৩
ফেসবুকের কয়েকটি প্রজন্ম…

ফেসবুক, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সহজ ও বহুল আলোচিত একটি মাধ্যম। ব্যবহারকারীর সংখ্যার দিক থেকেও এটিই সবচেয়ে বড় যোগাযোগ মাধ্যম বলা চলে। এর কারণ ইনস্ট্রাগ্রাম বা টুইটার সব বয়সের মানুষের হাতের কাছে ততটা নেই, যতটা ফেসবুক রয়েছে। আজ থেকে বছর পনেরো-বিশ আগেও ফেসবুকের বর্তমান প্রভাব চিন্তার বাইরে ছিল। সময় বদলায়, পরিবর্তিত সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের রুচি-অভিরুচি, আকর্ষণ, ইচ্ছে ইত্যাদি পরিবর্তিত হয়। সে অনুযায়ী আজ থেকে পনেরো-বিশ বছর পর হয়ত ফেসবুকের জায়গা দখল করবে অন্য কোনো আকর্ষণীয় আবিষ্কার।

যাই হোক, সেটি সময়সাপেক্ষ সত্য। এখন চিন্তা করার বিষয় হচ্ছে ফেসবুক নামক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি কোন কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছে; যা অন্য কোনো মাধ্যমের পক্ষে সম্ভব হয়নি। ফেসবুকের ইতিবাচক বা নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে বহু আলোচনা হয়েছে এবং হবেও; কিন্তু যে অভূতপূর্ব বিষয়টি দৃষ্টি-আকর্ষক সেটি হচ্ছে একই ওয়ালে বা জায়গায় একসঙ্গে অনেক প্রজন্মের জীবনযাপন করার বিষয়টি। সত্যিকার অর্থে ফেসবুক ব্যবহারকারীর বয়স সর্বনিম্ন দশ বা বারো বছরের কাছাকাছি আর সর্বোচ্চ ষাট থেকে পয়ষট্টি (ক্ষেত্রবিশেষে তারও বেশি) বছরের কাছাকাছি।  তবে নির্দিষ্ট করে এটি বলা জরিপসাপেক্ষে বিষয়। তা সত্ত্বেও বয়সের এ আনুমানিক সংখ্যাটি পুরোপুরি সঠিক না হলেও একেবারে ভুল নয়।

এ বয়স সীমাটিকে ব্যাখ্যা করলে দেখা যায় যে, আমরা বেশ কয়েকটি প্রজন্ম (ইংরেজিতে যাকে বলে জেনারেশন) ফেসবুকের বিশেষ প্ল্যাটফর্মে একত্রে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছি৷ বলছি ফেন্ডলিস্টের কথা। ব্যতিক্রম যেহেতু উদাহরণ হয় না সেহেতু সাধারণ ফেসবুকে আইডি নিয়ে কথা বলা প্রাসঙ্গিক৷ দেখা যায় যে, একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির ফেসবুক ফেন্ডের লিস্টে বারো থেকে পয়ষট্টি বছর বয়সের মধ্যে সব বয়সের বন্ধুর অনুরোধ থাকে। পরিচিত অপরিচিত সবাইকেই আমরা বন্ধু হিসেবে অনেকেই পেতে চাই এবং ব্যক্তি সাধারণত বিভিন্ন কারণে ক্ষেত্রবিশেষে অনুরোধগুলো গ্রহণও করছেন। এতে একই প্ল্যাটফর্মে বারো থেকে পয়ষট্টি বা তারও বেশি বয়সি মানুষ প্রতিদিন একসঙ্গে তাদের নানান বিষয় ভাগাভাগি করছে। প্রশ্ন হচ্ছে এ প্রজন্মগুলো কি একে অপরের রুচি অভিরুচিকে মেনে নেওয়ার মন মানসিকতা রাখেন? যদি রাখেনও তবুও প্রতিটি প্রজন্ম রুচি-অভিরুচি, ভালো লাগা, মন্দ লাগা, আগ্রহের জায়গা, চাহিদাগত অবস্থাগুলোতে কি এক? একের জন্য যেটা স্বাভাবিক, সেটা কি অন্যের জন্য অস্বাভাবিক নয়? একের জন্য যা শালীন সেটা কি অন্যের অবস্থান অনুযায়ী অশালীন নয়?

যদি আমরা একটি প্রজন্ম অন্য প্রজন্মকে বুঝতে শুরু করেছি এটা সত্যিকার অর্থে বলা যেত, তবে অসাধারণ হতো; কিন্তু সেরকমটি ভবিষ্যতে সম্ভব হলেও বর্তমানে পুরোপুরি সম্ভব নয়। ফেসবুকের একই ওয়ালে বন্ধু একাধিক প্রজন্ম একে অপরের সমালোচনা করে। সরাসরি না করতে পারলেও পরোক্ষভাবে করে। অনেকের ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত বলে আর তেমন কিছুই থাকে না একে অপরের সামনে। আবার আমরা যারা ফেসবুকে বন্ধু হই তারা যে সবক্ষেত্রেই অপরিচিত তা নয়, ক্ষেত্রবিশেষে নিকটাত্মীয়, এমনকি বাবা-মা ও সমশ্রেণীয় অনেকেই আমরা বন্ধু হই। যার যে বিষয়টি না দেখা, না জানা  ভালো সেটিও আর গোপন থাকে না এতে। এ থেকে আরম্ভ হয় এক ধরনের মনোগত অসন্তোষ।  কারণ আমরা বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রেও সচেতন না, অভিব্যক্তি বা ব্যক্তিগত বিষয়াবলী প্রকাশের ক্ষেত্রেও সচেতন না। এ যেন একই কামরায় অনেকেরই পৃথক বসবাসের মতো বেমানান চিত্র।

যদি আমরা একে-অপরে বিষয়গুলোকে আপেক্ষিকতার জায়গা থেকে দেখতাম তাও হতো; কিন্তু এখানে থেকে আমরা প্রত্যেকেই প্রত্যেকের নিজের দৃষ্টিভঙ্গিকেই বড় করে দেখি। আর অন্যের বিষয়কে ছোট করে দেখি৷ অন্যের যে বিষয়টি দেখে আমাদের ভালো লাগে না সেটি সরাসরি না বলতে পারলেও ঘুরিয়ে বলার জটিল চেষ্টা চালাই আমরা। এতে সৃষ্টি হয় জটিলতার ভিন্ন ভিন্ন সূত্র।

ফেসবুকের আরেকটি বড় বৈশিষ্ট্য হলো ইঙ্গিতপূর্ণ আচরণ করা অথবা যে কোন কিছুতে ভুল ইঙ্গিত খোঁজা। এতে সামাজিক যোগাযোগ সৃষ্টির বদলে ক্ষেত্রবিশেষে বিচ্ছিন্নতার পথটি সুগম হয়। প্রজন্মের সঙ্গে প্রজন্মের মতের পার্থক্য, ভিন্ন জীবনবোধ, চিন্তা-চেতনা একই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে যদি ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটিয়ে সম্পর্কের বা বোঝাপড়ার নতুন সেতু তৈরি করত তবে এটি আশীর্বাদ হতো। এটি যে কোথাও হচ্ছে না তাও নয়; কিন্তু যেহেতু মানুষ নেতিবাচকতা দ্বারা দ্রুত প্রভাবিত হয় যেহেতু এটি সেতুবন্ধন তৈরির চেয়ে বিচ্ছিন্নতার ইন্ধনই বেশি জোগায় বলা চলে।

ফেসবুক ব্যবহারকারীর ওয়ালে পোস্টকৃত সব কিছুকে কেন্দ্র করে তাকে, তার ব্যক্তিত্বকে বোঝা যায়; কিন্তু কতজন সে দিকটা মাথায় রেখে কাজ করে। ছোটদের ঘনিষ্ঠ ছবি, মুক্ত ও বাঁধনহারা মতামত, অভিরুচি ইত্যাদি যে বড়দের না জানাই ভালো সে সেটা দেখে দেখে ছোটকে ঔদ্ধত্যপূর্ণ মনে করে একদিকে, আবার অন্যদিকে বড়দের নিঃসঙ্গতা কাটানোর জন্য বা বন্ধু মহলে থাকার জন্য করা কাজটা ছোটদের কাছে অসহনীয় মনে হয়। এরা উভয় উভয়কে এমনভাবে জেনে ফেলে যেমনটা জানা স্নেহ ও শ্রদ্ধার সম্পর্কের বিপরীতমুখী হয়ে পড়ে। কারো কারো ভেতর পরশ্রীকাতরতা, কারো কারো ভেতর মিথ্যা লোক দেখানো জীবন-যাপনের প্রবল ইচ্ছে অলক্ষ্যে অপসংস্কৃতির দিকেও আমাদের ঠেলে দেয়।

বাঞ্ছনীয় দূরত্ব প্রতিটি সম্পর্কের জন্য জরুরি; কিন্তু বয়স, সম্পর্ক, আর অবস্থান ভেদে যে মিশ্র জনগোষ্ঠী ফেসবুকে একই দেয়ালে বিচরণ করছে তা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলে দেয় ক্ষেত্রবিশেষে।

যখন আমরা বন্ধু নির্বাচনে ভেদাভেদ করি না, অভিব্যক্তি প্রকাশে সব প্রজন্ম একসাথে দেখবে এটা ভাবি না, তখন আমাদের উচিত দেখেও না দেখা; কিন্তু সেটাও তো হচ্ছে না অনেকের ক্ষেত্রেই। আমরা দেখছি, দেখাচ্ছি, আমরা ভাবছি, ভাবাচ্ছি কিন্তু আমরা বুঝছি কম আর বোঝাচ্ছি কম।

এমতাবস্থায় যদি স্নেহ, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ, কিছুটা সংযম এবং নমনীয় মনোভাব পোষণ করা যায় তবে হয়ত একাধিক প্রজন্মের এই একই সঙ্গে একই প্ল্যাটফর্মে থাকাটা প্রজন্মের সঙ্গে প্রজন্মের দূরত্বটা কমিয়ে দিতে পারে। অন্যথায় বিভেদ বেড়ে এ দূরত্ব বেড়ে যাবে বহুগুণ।

সেক্ষেত্রে আমাদের প্রত্যেকেরই মনে রাখা উচিত আমরা ফেসবুক প্ল্যাটফর্মে কাকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করছি আর কী কী বিষয়ে ফেসবুকে কার কার সামনে কিভাবে প্রকাশ করছি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হোক পরস্পরের মধ্যকার সেতুবন্ধন। অসচেতনতা বা অসহিষ্ণু মনোভাব দূরত্ব না বাড়াক, সচেতনতা ও নমনীয়তা কাছাকাছি আনুক প্রতিটি প্রজন্মকে- অন্তত যেটুকু আনা যায়।

Please Share This Post in Your Social Media
May 2024
T W T F S S M
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031